ই কমার্স ওয়েবসাইট তৈরী করবেন কিভাবে? নিয়ম গুলি জানুন

ই কমার্স ওয়েবসাইট তৈরী করছেন অর্থাৎ আপনি কোম্পানি খুলবেন তাই কোম্পানির নাম ঠিক করা উচিত। এবং ওই নাম অনুযায়ী ওয়েবসাইট বানানো উচিত। যার ফলে মানুষ সহজেই আপনার কোম্পানির নাম মনে রাখলে ওয়েবসাইটটি খুলতে পারে এবং অনলাইনে ওয়েবসাইট থেকে জিনিসপত্র অর্ডার করতে পারে।

ওয়েবসাইট বানানোর জন্য প্রথমে দুটি জিনিসের প্রয়োজন যা হলো :

  • ডোমেইন নাম : যে নামে ওয়েবসাইট টি রাখবেন ওই নাম ডোমেইন রেজিস্টার করবেন।
  • হোস্টিং : এবং আপনার ওয়েবসাইট কে হোস্ট করার জন্য একটি ক্লাউড কম্পিউটার ভাড়ায় নিতে হবে। অর্থাৎ ওই কম্পিউটারে আপনার ওয়েবসাইটের সমস্ত ডেটা,, ফটো সঞ্চিত থাকবে। যার ফলে গ্রাহক ওই code, ডেটা, photo গুলি দেখতে পারবে। এবং

প্রথমে জানতে হবে ওয়েবসাইট কিভাবে কাজ করে? এটি পড়তে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের জন্য সবথেকে ভালো হোস্টিং

পদ্ধতিগুলি স্টেপ অনুযায়ী আলোচনা করা হলো:

১. ডোমেইন রেজিস্টার করতে হবে

ই কমার্স কোম্পানির নাম অনুযায়ী ডোমেইন নাম রেজিস্টার করতে হবে। ডোমেইন নামের উদাহরণ হলো যেমন আমাদের ওয়েবসাইট banglate.co এটি একটি ডোমেইন। যেমন amazon.com একটি ডোমেইন নাম।

এরকম ডোমেইন নাম রেজিস্টার করার সবথেকে ভালো জায়গা হলো namecheap.com এই ওয়েবসাইট থেকে সস্তায় ডোমেইন নাম কিনতে পারেন।

২. হোস্টিং

ডোমেইন কেনার পরে হোস্টিং কিনতে হবে। হোস্টিং সার্ভার প্রতিমাসে ভাড়ায় নেওয়ার জন্য namecheap.com থেকেই কিনে নিতে পারেন।

হোস্টিং এর মানে হলো : একটি কম্পিউটার যা ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত এবং সবসময় চালু থাকবে। যার ফলে আপনার ওয়েবসাইট সারাক্ষন চালু থাকবে এবং যখন খুশি গ্রাহক আপনার ওয়েবসাইট visit করতে পারে। এবং ওয়েবসাইট থেকে জিনিসপত্র অর্ডার করতে পারে।

ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটের জন্য সবথেকে ভালো হোস্টিং

৩. ডোমেইন হোস্টিং যুক্ত করা

ডোমেইন হোস্টিং কিনে নেয়ার পরে আপনাকে ডোমেইনের সঙ্গে হোস্টিং সার্ভার কে যুক্ত করতে হবে। যার ফলে যখন ওই ডোমেইন নাম লিখে গ্রাহক সার্চ করলে আপনার ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রবেশ করতে পারে এবং সমস্ত প্রোডাক্টগুলি দেখতে সক্ষম।

ডোমেইনকে হোস্টিং সার্ভারের সঙ্গে যুক্ত করার জন্য ডোমেইন যেখান থেকে কিনেছেন ঐখানের কাস্টমার কেয়ার এর সঙ্গে যোগাযোগ করুন। যদি আপনি জেনে থাকেন কিভাবে ডোমেইন এর সঙ্গে নাম সার্ভার যুক্ত করা হয় তাহলে নিজেই করে নিতে পারবেন।

ডোমাইনকে হোস্টিংয়ের সঙ্গে যুক্ত করার জন্য , যেখান থেকে ডোমেইন কিনেছেন ওই ওয়েবসাইটের ডোমেইন ম্যানেজার এর ভেতরে nameserver এর জায়গায় হোস্টিং কোম্পানির দেওয়া nameserver লিখতে হবে। nameserver আপডেট করার কিছুক্ষনের মধ্যে আপনার ডোমেইন এবং হোস্টিং কানেক্ট হয়ে যাবে।

৪. ওয়ার্ডপ্রেস অথবা কোডিং

দুটো উপায়ে ই কমার্স ওয়েবসাইট বানানো যায়। একটি হলো সহজ পদ্ধতি , ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল এর মাধ্যমে।

এবং অপরটি হলো : কোডিং এর মাধ্যমে। যদি আপনি কোডিং না জেনে থাকেন তাহলে ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে করতে পারেন।

ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে ই কমার্স ওয়েবসাইট বানানোর জন্য কোনো প্রকারের কোডিং শেখার প্রয়োজন নেই।

হোস্টিং প্যানেলে গিয়ে ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করে ফেলুন।

৫. প্রয়োজনীয় থিম এবং plugin

ওয়ার্ডপ্রেস ইনস্টল করার পরে আপনাকে ওয়েবসাইটের dashboard এ লগইন করতে পারবেন , এবং dashboard এ লগইন করলে প্রয়োজনই থিম এবং প্লাগিন ইনস্টল করতে পারবেন।

৬. WooCommerce

এরপরে, সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ plugin যেটা ই কমার্স ওয়েবসাইট বানানোর জন্য প্রয়োজন। তা হলো WooCommerce plugin এই plugin টিকে ইনস্টল করুন।

এই প্লাগিং এর মাধ্যমে প্রোডাক্ট লিস্ট করতে পারবেন এবং কাস্টমার অনলাইনের মাধ্যমে অর্ডার করতে পারবেন। এবং আপনি ওই অর্ডার অনুযায়ী কাস্টমার এর ঠিকানাতে প্রোডাক্ট ডেলিভারি করতে পারবেন।


ওয়েবসাইট বানাতে গিয়ে যদি কোনো সমস্যায় পড়েন তাহলে অবশই কমেন্ট করে জানাবেন। তাড়াতাড়ি উত্তর দিয়ে সাহায্য করবো।

আমি এখানে শুধুমাত্র আইডিয়া শেয়ার করলাম। যদি অতিরক্ত জানার প্রয়োজন হয় তাহলে অবশই জানাবেন কমেন্ট করে।

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.