ডেবিট কার্ড কি? কিভাবে কাজ করে? সুবিধা, অসুবিধা, সচেতনতা

যে ব্যাংকে আপনার একাউন্ট আছে ওই ব্যাঙ্ক থেকে একটি কার্ড পাওয়া যায়। ওই কার্ডটি ব্যাংকের অ্যাকাউন্টের সঙ্গে লিংক করা থাকে। অর্থাৎ আপনারা ব্যাংকের অ্যাকাউন্টে যত টাকা থাকবে তত টাকা ওই কার্ডে পাবেন ।

ওই কার্ড ব্যবহার করে এটিএম (ATM) মেশিনে গিয়ে কার্ডটি ব্যবহার করে টাকা তুলতে পারবেন অথবা কোনো অনলাইন ওয়েবসাইটে পেমেন্ট অথবা অন্য কোনো জায়গায় ওই কার্ড ব্যবহার করে টাকা পেমেন্ট করতে পারবেন।

ডেবিট কার্ড কি?

একটি ডেবিট কার্ড হল একটি পেমেন্ট কার্ড যা ব্যবহার করার সময় গ্রাহকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে সরাসরি অর্থ কেটে নেয়। এছাড়াও “চেক কার্ড” বা “ব্যাঙ্ক কার্ড” বলা হয়। এগুলি পণ্য বা পরিষেবা কেনার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে অথবা এটিএম মেশিনে (ATM Machine) থেকে টাকা তুলতে পারেন।

ডেবিট কার্ড কিভাবে কাজ করে?

আগে এটিএম কার্ড ব্যাঙ্ক থেকে পাওয়া যেত , ওই কার্ড দিয়ে শুধুমাত্র ওই ব্যাংকের এটিএম থেকে টাকা তোলা যেতো কোনোরকমের অনলাইনে কেনা কাটা করা যেতোনা এবং অন্য কোনো ব্যাঙ্কের এটিএম থেকেও টাকা তোলা সম্ভব হতো না।

এই সমস্যা সমাধানের জন্য, ‘” ভিসা(VISA), মার্স্টার্ডকার্ড ( Mastercard) এবং ডিসকভার( Discover)” নামের কোম্পানিগুলি সমস্ত ব্যাঙ্কের সঙ্গে চুক্তি করে এবং ব্যাঙ্ক ওই চুক্তি অনুযায়ী ব্যাঙ্ক ভিসা অথবা মাস্টার কার্ড প্রদান করে থাকে।

ভিসা, মাস্টার এবং ডিসকভার এগুলি হলো আলাদা আলাদা কোম্পানি। এই কোম্পানিগুলি পৃথিবীর প্রায় সমস্ত ব্যাঙ্কের সঙ্গে Tie up করে রেখেছে।

এবং ব্যাঙ্ক সেই অনুযায়ী গ্রাহককে ভিসা, মাস্টার অথবা ডিসকভার কার্ড প্রদান করে।

ডেবিট কার্ডগুলি আপনার ব্যাঙ্ক দ্বারা জারি করা হয় এবং ডেবিট কার্ড সরাসরি আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সাথে লিঙ্ক করা থাকে। এবং এই কার্ড ব্যবহার করে আপনার ব্যাংকে রাখা টাকাকে ডিজিটাল ভাবে ব্যবহার করতে পারবেন অথবা ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টের টাকা যেকোনো এটিএম মেশিন থেকে তুলতে পারেন।

এই কার্ডগুলি ভিসা ও মাস্টার কার্ড অথবা ডিসকভার কোম্পানির হয়ে থাকে। এবং যেহেতু ওই কোম্পানি গুলি পৃথিবীর প্রায় সমস্ত ব্যাংকের সঙ্গে যুক্ত আছে তাই ওই ডেবিট কার্ড ব্যবহার করে যেকোনো ব্যাংকের এটিএম থেকে টাকা তুলতে পারবেন এবং প্রায় সমস্ত অনলাইন ওয়েবসাইটে পেমেন্ট করতে পারবেন। এবং পেমেন্ট করার সঙ্গে সঙ্গে আপনার ব্যাংকে রাখা টাকা কেটে নেওয়া হবে।

যদি আপনার ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকে তাহলে টাকা পেমেন্ট করতে পারবেন না। ধরুন আপনার ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে ১০০০ টাকা আছে এবং আপনি পেমেন্ট করতে চান ১১০০ টাকা এই অবস্থায় পেমেন্ট করতে পারবেন না। ১১০০ টাকা ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে যদি থাকে তাহলেই ১১০০ টাকা পেমেন্ট করতে পারবেন অথবা এটিএম থেকে তুলতে পারবেন। অতিরিক্ত কোনোরকমের টাকা ডেবিট কার্ড থেকে তোলা সম্ভব নয়।

ডেবিট কার্ড কিভাবে পাবেন?

ডেবিট কার্ড পাওয়ার জন্য আপনার bank account থাকা প্রয়োজন। যদি ব্যাঙ্ক একাউন্ট না থাকে তাহলে ব্যাংকে দিয়ে ব্যাঙ্ক একাউন্ট বানিয়ে ফেলুন।

তারপর ডেবিট কার্ডের জন্য apply করুন অথবা ব্যাংকে গিয়ে বলুন আপনার ডেবিট কার্ডের প্রয়োজন। তাহলে ব্যাঙ্ক আমার ডকুমেন্ট নিয়ে ডেবিট কার্ড কয়েক দিনের মধ্যেই প্রদান করবে।

ডেবিট কার্ড কোথায় কোথায় ব্যবহার করতে পারবেন?

সাধারণত ডেবিট কার্ড আমরা যেসমস্ত জায়গায় ব্যবহার করে থাকি:

  • এটিএম মেশিন থেকে টাকা তুলতে পারবেন।
  • এটিএম মেশিনে গিয়ে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে কত টাকা আছে তা ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে দেখতে পারবেন।
  • অনলাইন শপিং করার সময় পেমেন্ট করতে পারবেন।
  • অনলাইনে কাউকে টাকা ট্রান্সফার করার জন্য ডেবিট কার্ড এর ব্যবহার করতে পারেন।

ডেবিট কার্ড কিভাবে ব্যবহার করবেন?

অনলাইন ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট করার জন্য: ডেবিট কার্ডের ওপরে নম্বর লেখা থাকে ওই নম্বর লিখে পেমেন্ট করতে পারবেন।

এছাড়াও এটিএম থেকে টাকা তোলার জন্য ডেবিট কার্ড এটিএম মেশিনের মধ্যে ঢোকাতে হবে এবং টাকার পরিমান এবং ডেবিট কার্ড পিন দেওয়ার পরে এটিএম থেকে খুবই সহজে টাকা তুলতে পারবেন।

ডেবিট কার্ডের সুবিধা

ডেবিট কার্ডের সুবিধা অনেক বেশি , তাই ডেবিট কার্ড রাখা উচিত বলে মনে হয় আমার, ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে যেসব সুবিধাগুলি পাবেন তা হলো :

  • টাকা তোলার জন্য ব্যাংকে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।
  • ব্যাঙ্ক বন্ধ থাকলেও যেকোনো এটিএম মেশিন থেকে টাকা তুলতে পারবেন ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে।
  • অনলাইনে পেমেন্ট করতে পারবেন।
  • টাকা পকেটে নিয়ে ঘুরতে হয়না। শুধু ডেবিট কার্ড থাকলেই যেকোনো জায়গায় টাকা তুলতে পারবেন অথবা বিভিন্ন জায়গায় পেমেন্ট করতে পারবেন।

ডেবিট কার্ডের অসুবিধা

ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে সুবিধা অনেক বেশি হওয়া কিছু অসুবিধাও আছে যা হলো :

  • ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে বছরে সামান্য কিছু টাকা চার্জ করে।
  • ডেবিট কার্ড প্রদান করার জন্য বেশিরভাগ ব্যাঙ্ক কিছু টাকা চার্জ করে থাকে।
  • ডেবিট কার্ড ব্যবহার করলে আপনাকে কিছুটা সাবধান থাকতে হবে। ফোন করে আপনার ডেবিট কার্ডের নম্বর ও OTP নেওয়ার পরে আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের টাকা খালি করতে পারে।
  • প্রতি মাসে ডেবিট কার্ড এর মাধ্যমে এটিএম থেকে ৩-৫ বার টাকা তুলতে পারবেন কোনোরকমের চার্জ ছাড়াই। এবং তারপর যদি এটিএম থেকে টাকা তোলেন এটিএম থেকে তাহলে কিছু টাকা চার্জ করতে পারে ব্যাঙ্ক।

ডেবিট কার্ড ব্যবহারের সচেতনতা

  • ডেবিট কার্ড এর নম্বর যেকোনো ওয়েবসাইটে দেবেন না। যদি কোনো বিশস্ত ওয়েবসাইট হয় তাহলে ওই ওয়েবসাইটে ডেবিট কার্ডের নম্বর ব্যবহার করে পেমেন্ট করতে পারেন।
  • ডেবিট কার্ডের নম্বর কাউকে শেয়ার করবেন না।
  • আপনার ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টের এবং ডেবিট কার্ডের সঙ্গে লিংক করা ফোন নম্বরে আসা কোনো প্রকারের ভেরিফিকেশন OTP কাউকে শেয়ার করবেন না। ওই OTP শুধুমাত্র পেমেন্ট করার সময় ব্যবহার করা হয়।
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.