পানি দূষণ কাকে বলে? – কারণ, প্রভাব, প্রতিকার

পরিবেশের কোনো ক্ষতিকারক পদার্থ পানির সাথে মিশে পানির ভৌত, রাসায়নিক ও জৈবিক বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তন করে, যার ফলে উদ্ভিদ ও প্রাণীর ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে এই অবস্থাকে পানি দূষণ বলে

যে পানি জীবের স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলে, সেই পানিকে দূষিত পানি বলে। তখন এই পানি আর পানযোগ্য থাকে না এবং নানা ধরনের রোগের সৃষ্টি করে।

পানি দূষণের কারণ

সাধারণ পানি দূষণের দুটি উৎস রয়েছে। য হল : পানি

  1. প্রাকৃতিক কারণ
  2. মনুষ্যসৃষ্ট কারণ

১) প্রাকৃতিক কারণ

আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, আর্সেনিক, ফ্লোরাইড, ক্ষার, লবণ, ধাতব পদার্থ, আয়রন ব্যাকটেরিয়া, বিভিন্ন কৃমি, প্রাকৃতিক তেজস্ক্রিয়তার কারণেও প্রাকৃতিক ভাবে পানি দূষণ হতে পারে।

ভূগর্ভস্থ পানিতে লোহা পাওয়া যায় এমন জায়গায় ম্যাঙ্গানিজও প্রায়ই পাওয়া যায়। আর্সেনিক দ্বারা ভূগর্ভস্থ পানি দূষণের কারণ হল মাটির অভ্যন্তরে লৌহঘটিত আর্সেনিক পাইরাইট খনিজের উপস্থিতি।

খনির এলাকায় পানি দূষণের প্রধান কারণ হল আয়রন ব্যাকটেরিয়া এবং সালফার ব্যাকটেরিয়া, যা পানির pH-কে প্রভাবিত করে। (pH) মান এবং পানিতে স্লাইম তৈরি করে।

সমুদ্রের ভেতরে আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণের ফলেও পানি দূষিত হয় ।

২) মনুষ্যসৃষ্ট কারণ

মানবসৃষ্টি পানি দূষণের গুরুত্বপূর্ণ কারণগুলি হল:

২ . ১ ) শিল্প বর্জ্য: বড়-বড় শিল্প-কারখানা, ছোট-বড় কল-কারখানা নদীর পানির সর্বোচ্চ ব্যবহার করে বর্জ্য আবার নদী-নালায় ফেলে পানিকে দূষিত করছে। ফলে সব নদীই দূষিত হয়ে পড়েছে।

২ . ২ ) শহুরে বর্জ্য পানি: ঘরোয়া পানি, তরল বর্জ্য, জৈব মলমূত্র এগুলোর বেশির ভাগই নদীতে ফেলে দেওয়া হয় ।

২ . ৩) কৃষি উপকরণ: জমিতে সার ও কীটনাশক বেশিরভাগই বৃষ্টির পানিতে ধুয়ে নদী-নালায় মিশে পানিকে দূষিত করে।

২ . ৪ )পারমাণবিক শক্তির ব্যবহার: পারমাণবিক শক্তি ব্যবহারের কারণে বায়ুমণ্ডলে অসংখ্য তেজস্ক্রিয় কণা তৈরি হয়। যা বৃষ্টির পানিতে মিশে পানিকে দূষিত করে।

২ . ৫) ছাই: দেশে পর্যাপ্ত সংখ্যক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে। প্রতিদিন হাজার হাজার টন ছাই উৎপন্ন হয়, যা বৃষ্টির মাধ্যমে পুকুর ও নদীতে পৌঁছায়। এর মধ্যে প্রায় সব ভারী ধাতুই থাকে। যার কারণে আশপাশের ভূগর্ভস্থ পানি ও ভূ-পৃষ্ঠের পানি বিষাক্ত হয়ে পড়ে।

২ . ৬) জ্বালানী পোড়ানো: পেট্রোলিয়াম, খনিজ, কয়লা এবং অন্যান্য জ্বালানী পোড়ানোর ফলে সালফার ডাই অক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড, নাইট্রোজেনের অক্সাইড এবং অন্যান্য গ্যাস বৃষ্টির পানিতে দ্রবীভূত হয় এবং অ্যাসিড ও অন্যান্য লবণ তৈরি করে পানিকে দূষিত করে।

২ . ৭ )তেল ছড়িয়ে পড়া: সমুদ্রে দুর্ঘটনাক্রমে পেট্রোলিয়াম পড়ে যাওয়ার কারণে তেল ছড়িয়ে পড়ে। তেল ট্যাঙ্কার, উপকূলীয় তেল খনির, তেল অনুসন্ধান কার্যক্রম এবং তেল শোধক দ্বারা পানিজ ইকোসিস্টেম তেল আবরণ দ্বারা উপকূলীয় সৌন্দর্য প্রতিকূলভাবে প্রভাবিত হয়।

২ . ৮ ) ডিটারজেন্ট এবং সাবান: ডিটারজেন্ট সাবান স্নান, ধোয়া, কাপড় পরিষ্কার করার জন্য ব্যবহৃত হয়। এতে পানি দূষিত হয়।

২ . ৯) অ্যাসিড বৃষ্টি : কারখানা থেকে ধোঁয়া নির্গত চিমনি বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইড, সালফার ডাই অক্সাইড এবং নাইট্রিক অক্সাইডের মতো গ্যাসীয় বাষ্প কণার সাথে ক্রমাগত বিক্রিয়া করে এবং পানি ও বৃষ্টিতে দ্রবীভূত হয়।

পানি দূষণের প্রভাব

  1. নর্দমা দ্বারা দূষিত পানিতে শেলফিশ টাইফয়েড, প্যারাটাইফয়েড বা ব্যাকটেরিয়াজনিত ডায়রিয়া হতে পারে।
  2. শিল্প বর্জ্যে অনেক বিষাক্ত রাসায়নিক এবং সূক্ষ্ম ধাতব কণা রয়েছে, যা লিভার, কিডনি এবং মস্তিষ্ক সম্পর্কিত অনেক রোগের পাশাপাশি প্রাণঘাতী ক্যান্সার রোগের কারণ ।
  3. ডিডিটি এবং B.H.C. উদাহরণস্বরূপ, পোকামাকড় ও আগাছা নিধনকারীরা দূষিত পানির মাধ্যমে গর্ভবতী মায়েদের রক্তে পৌঁছে গর্ভধারণের ক্ষমতা নষ্ট করার পাশাপাশি ভ্রূণে বিকৃতি ঘটাতে পারে।
  4. মলমূত্র, টাইফয়েড, প্যারাটাইফয়েড, বিভিন্ন ধরনের ডায়রিয়া পরজীবী কৃমি বা সংক্রামক জন্ডিস টাইফয়েড, প্যারাটাইফয়েড বা কলেরায় আক্রান্ত হয়।
  5. পানি দূষণ পানির pH মান, অক্সিজেন এবং ক্যালসিয়ামের পরিমাণ, জিঙ্ক এবং সীসার দূষিত পানি প্রায়শই জৈব-সৃষ্টির জন্য অকার্যকর হয়ে পড়ে।
  6. শৈবাল এবং অন্যান্য পানিজ উদ্ভিদ নদী, পুকুর ইত্যাদির ড্রেনে বসে থাকা ঝুলন্ত কণার দ্বারা ধ্বংস হয়ে যায়।
  7. কৃষিকাজে ব্যবহৃত সার শিশুদের রক্তের মারাত্মক রোগ, মেথাইমোগ্লোবিনেমা সৃষ্টি করে।
  8. পানি দূষণের অর্থনৈতিক প্রভাব খুবই দৃশ্যমান। বিশুদ্ধ পানির খরচের তুলনায় দূষিত পানি পরিষ্কার করা ব্যয়বহুল। পানি দূষণ মাছ এবং অন্যান্য পানিজ প্রাণীকে প্রভাবিত করে। এর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে পর্যটনেও।

পানি দূষণের প্রতিকার

  • শিল্প বর্জ্য পণ্য পরিশোধন করার আগে প্রয়োগ করা উচিত যাতে তাদের থেকে নির্গত জল বিশুদ্ধ হওয়ার পরে জলের উত্সগুলিতে যেতে পারে।
  • পশুদের ব্যবহারের জন্য আলাদা পানির উৎস ব্যবহার করতে হবে।
  • সরকার ও সমাজের উচিত যৌথভাবে দূষিত পানির পরিচ্ছন্নতা সংক্রান্ত প্রচারণা চালানো।
  • শহুরে এলাকার গার্হস্থ্য পয়ঃনিষ্কাশন থেকে 90% এরও বেশি দূষক অপসারণ করতে পারে।
  • শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য কারখানার বর্জ্য পরিশোধন ছাড়া নদী, হ্রদ ও পুকুরে না ফেলা বাধ্যতামূলক করতে হবে।
  • কৃষকরা অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহার না করে এবং জৈবসার ও জৈব কীটনাশক ব্যবহার করে পানির গুণমান বজায় রাখতে পারে।
  • ক্ষয়যোগ্য পদার্থ কীটনাশক, ছত্রাকনাশক ইত্যাদি আকারে ব্যবহার করা উচিত।
  • বিপজ্জনক কীটনাশক ব্যবহার নিষিদ্ধ করা উচিত।
  • তাপ ও ​​পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বের হওয়া পানি শীতল করার পর বিশুদ্ধ করে পানির উৎসে ছেড়ে দিতে হবে।
  • কৃষিকাজে সার ও কীটনাশকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।
  • পানি দূষণের কুফল সম্পর্কে জনসাধারণকে সচেতন করতে হবে।
  • পানি দূষণ ও এর কুফল সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে সচেতন ও সচেতন করতে হবে।
  • সময়ে সময়ে, ক্ষতিকারক গাছপালা জল উত্স থেকে অপসারণ করা উচিত।
  • পানি দূষণ নিয়ন্ত্রণে সরকারকে কার্যকর আইন করতে হবে।
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.