পূর্ণ সংখ্যা কাকে বলে? উদাহরণ, প্রকার ও কি কি?

যে সংখ্যাকে ভগ্নাংশ ছাড়াই লেখা যায়, ওই সংখ্যাকে পূর্ণ সংখ্যা বলে।

শূন্য (০) এবং ভগ্নাংশ ছাড়া লেখা যায় এমন ঋণাত্বক এবং ধনাত্বক সংখ্যাগুলিই হলো পূর্ণ সংখ্যা।

উদাহরণস্বরূপ, ৫ কে ভগ্নাংশ আকারে লেখা যায়়। যেমন ৫/১ । এবং ৫ কে ভগ্নাংশ আকার ছাড়াও লেখা যায় । শুধু ৫। তাই এটি একটি পূর্ণ সংখ্যা।

আবার, ২২/৭ কে ভগ্নাংশ আকার ছাড়া লেখাই যায়না। দশমিক ভগ্নাংশ আকারে প্রকাশ করা যায় যা হলো: 3.14159265359 অর্থাৎ এটিকে পূর্ণ সংখ্যা বলা যাবে না।

উদাহরণ

-৬,-৫,-৪,-৩,-২,-১,০,১,২,৩, এগুলি হলো কয়েকটি পূর্ণ সংখ্যার উদাহরণ। এভাবে পূর্ণসংখ্যার সংখ্যা অসীম।

পূর্ণ সংখ্যা চেনার উপায়

  • পূর্ণ সংখ্যা অর্থাৎ কোনো প্রকারের ভগ্নাংশ, দশমিক আকারে সংখ্যাগুলি থাকবে না।
  • -৬, -৫, -৪,-৩, -২, -১, ০, ১, ২, ৩, ৪, ৫, ৬ ইত্যাদি হলো পূর্ণসংখ্যার উদাহরণ।
  • পূর্ণসংখ্যা ঋণাত্মক এবং ধনাত্মক হতে পারে।
  • শূন্য একটি পূর্ণসংখ্যা।

পূর্ণ সংখ্যার প্রকার ও কি কি?

পূর্ণ সংখ্যা ৩ প্রকার, যা হল –

  1. ঋণাত্বক পূর্ণসংখ্যা: শূন্য এর থেকে ছোটো সমস্ত পূর্ণ সংখ্যাকে ঋণাত্বক পূর্ণ সংখ্যা বলা হয়। যেমন: -১, -২,-৩,-৪ ইত্যাদি হলো ঋণাত্বক পূর্ণ সংখ্যার উদাহরণ।
  2. শূন্য: শূন্য হলো একটি পূর্ণ সংখ্যা। এটি ঋণাত্বক কিংবা ধনাত্বক পূর্ণ সংখ্যা নয়।
  3. ধনাত্মক পূর্ণসংখ্যা: শূন্য এর থেকে বড় সমস্ত পূর্ণ সংখ্যাকে ধনাত্বক পূর্ণ সংখ্যা বলা হয়। যেমন: ১,২,৩,৪,৫ ইত্যাদি। ধনাত্মক পূর্ণসংখ্যা আবার ৩ প্রকার : যা হলো :
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.