বিজ্ঞান কাকে বলে? । বিজ্ঞানের শাখা

বিজ্ঞান (ইংরেজিতে Science) এই Science শব্দটি এসেছে ল্যাটিন শব্দ ‘Scientia’ থেকে, যার অর্থ জ্ঞান।

বাংলায় বিজ্ঞান কে বিশ্লেষণ হল বি+জ্ঞান, যার অর্থ দাঁড়ায় বিশেষ জ্ঞান। অর্থাৎ, কোন বিষয়ে বিশেষ জ্ঞান কে বলা হয় বিজ্ঞান।

বিশেষ জ্ঞান হল: ভৌত বা বস্তুগত জগতের পর্যবেক্ষণযোগ্য, পরীক্ষণযোগ্য ও যাচাইযোগ্য, তার সুশৃঙ্খল, নিয়মতান্ত্রিক গবেষণা ও সেই গবেষণালব্ধ জ্ঞান।

বিজ্ঞান কাকে বলে?

বিজ্ঞান হলো: পর্যবেক্ষণ এবং পরীক্ষা নিরীক্ষার মাধ্যমে অর্জিত ভৌত বা বস্তুগত জগতের পদ্ধতিগত জ্ঞান।

বিজ্ঞানের শাখা

বিজ্ঞানকে প্রকারে বিভক্ত করা যায় না। তবে বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখা রয়েছে। বিজ্ঞানের এ শাখাগুলোকে আবার বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা যায়।

বিজ্ঞানের তিনটি প্রধান শাখা রয়েছে। এগুলো হল-

  1. ভৌত বিজ্ঞান
  2. জীবন বিজ্ঞান
  3. পৃথিবী বিজ্ঞান

১. ভৌত বিজ্ঞান

ভৌত বিজ্ঞান হল বিজ্ঞানের একটি শাখা যা অজৈব পদার্থ নিয়ে কাজ করে, যা এমন পদার্থ যা জীবিত নয়। যারা ভৌত বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে কাজ করে তারা কিভাবে পদার্থ কাজ করে এবং অন্যান্য সার্বজনীন ঘটনা সম্পর্কে নতুন আবিষ্কার উন্মোচন করতে পারে।

ভৌত বিজ্ঞানের সাথে জড়িত যে পেশাগুলি রয়েছে:

পদার্থবিজ্ঞানী: পদার্থবিজ্ঞানীরা পদার্থবিজ্ঞানে তত্ত্ব তৈরি এবং পরীক্ষা করার জন্য দায়ী। তারা প্রায়ই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এবং বৈজ্ঞানিক সরঞ্জাম তৈরিতে পদার্থবিদ্যার দক্ষতা প্রয়োগ করে।

রসায়নবিদ: রসায়নবিদরা হলেন বিজ্ঞানী যারা আণবিক পদার্থের উপর পরীক্ষা চালান। তারা প্রায়ই বিভিন্ন উদ্দেশ্যে বিভিন্ন রাসায়নিক পরীক্ষা করে এবং তৈরি করে।

কম্পিউটার বিজ্ঞানী: কম্পিউটার বিজ্ঞানীরাও পদার্থবিজ্ঞানের পটভূমি থেকে উপকৃত হতে পারেন। কম্পিউটার বিজ্ঞানীরা সমস্যা সমাধানের জন্য কম্পিউটার ব্যবহার করার উপায় খুঁজে বের করার জন্য দায়ী।

কোয়ান্টাম পদার্থবিজ্ঞানী: কোয়ান্টাম পদার্থবিদরা হলেন এমন বিজ্ঞানী যারা কোয়ান্টাম পদার্থবিদ্যায় বিশেষজ্ঞ, যা পারমাণবিক এবং সাবটমিক স্কেলে মহাবিশ্বের আচরণকে জড়িত করে। কোয়ান্টাম পদার্থবিদরা প্রায়ই নতুন বৈজ্ঞানিক তত্ত্ব নিয়ে কাজ করেন যা আগে কখনও অধ্যয়ন করা হয়নি।

জ্যোতির্বিজ্ঞানী: জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা হলেন বিজ্ঞানী যারা পৃথিবীর বাইরে মহাবিশ্ব, গ্যালাক্সি, গ্রহ এবং তারা সহ অধ্যয়ন করেন।

কসমোলজিস্ট: কসমোলজিস্টরা হলেন এমন বিজ্ঞানী যারা মহাবিশ্বের উৎপত্তি, স্থান এবং সময়ের মধ্যে সম্পর্ক এবং অন্যান্য সার্বজনীন বৈশিষ্ট্যগুলি অধ্যয়ন করেন।


২. জীবন বিজ্ঞান

জীবন বিজ্ঞান হল বিজ্ঞানের একটি শাখা যেখানে জৈব জিনিসের অধ্যয়ন জড়িত, যা জীবিত জিনিস। জীবন বিজ্ঞানের ক্ষেত্র মানুষকে উদ্ভিদ, প্রাণী এবং মানব জীববিজ্ঞান সহ পৃথিবী বুঝতে সাহায্য করতে পারে।

জীবন বিজ্ঞানের সাথে জড়িত যে পেশাগুলি রয়েছে:

সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী: সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানীরা হলেন বিজ্ঞানী যারা সামুদ্রিক জীবন অধ্যয়ন করেন।

ফার্মাকোলজিস্ট: ফার্মাকোলজিস্টরা হলেন বিজ্ঞানী যারা রোগের চিকিত্সার জন্য ওষুধগুলি অধ্যয়ন করেন এবং বিকাশ করেন।

ফরেনসিক বিজ্ঞানী: অপরাধ সমাধানে সাহায্য করার জন্য অপরাধের দৃশ্য এবং প্রমাণ বিশ্লেষণের জন্য ফরেনসিক বিজ্ঞানীরা দায়ী। প্রায়শই, ফরেনসিক বিজ্ঞানীরা পরীক্ষাগারে প্রমাণ পরীক্ষা করেন।

ভাইরাসবিদ: ভাইরাসবিদরা হলেন বিজ্ঞানী যারা ভাইরাসের সংক্রমণ এবং প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধের পদ্ধতিগুলি বিকাশের জন্য ভাইরাসগুলি অধ্যয়ন করেন।

কৃষি বিজ্ঞানী: কৃষি বিজ্ঞানীরা কৃষি শিল্পকে উন্নত করতে সাহায্য করার জন্য শস্য এবং খামারের প্রাণী সম্পর্কিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা নতুন কৃষি পদ্ধতি তৈরি করতে পারেন।


৩. পৃথিবী বিজ্ঞান

পৃথিবী বিজ্ঞান হল প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের একটি ক্ষেত্র যা পৃথিবীর উপাদান এবং এর বায়ুমণ্ডল নিয়ে কাজ করে। যারা পৃথিবী বিজ্ঞানে কাজ করে তারা পৃথিবীর সামাজিক বোঝার জন্য অবদান রাখতে পারে এবং কীভাবে মানুষ এটিকে রক্ষা করতে পারে।

পৃথিবী বিজ্ঞানের সাথে জড়িত যে পেশাগুলি রয়েছে:

আবহাওয়াবিদ: আবহাওয়াবিদরা আবহাওয়া বিশ্লেষণ এবং আবহাওয়ার পূর্বাভাস প্রস্তুত করার জন্য দায়ী। তারা টেলিভিশন সংবাদ বা অনলাইন ভিডিওতে তাদের আবহাওয়ার পূর্বাভাস সম্প্রচার করতে পারে।

ভূতাত্ত্বিক: ভূতত্ত্ববিদরা হলেন বিজ্ঞানী যারা শিলা এবং পৃথিবীর অন্যান্য কঠিন অংশ অধ্যয়ন করেন। ভূতত্ত্ববিদরা প্রায়ই ভূতত্ত্ব-সম্পর্কিত প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন কাদা ধস এবং ভূমিকম্প অধ্যয়ন করেন।

ভূমি পরিকল্পনাবিদ: ভূমি পরিকল্পনাবিদরাও পৃথিবী বিজ্ঞানের জ্ঞান ব্যবহার করতে পারেন। ভূমি পরিকল্পনাবিদরা কীভাবে জমি নিয়ন্ত্রণ এবং বিকাশ করবেন তার পরিকল্পনা করার জন্য দায়ী।

সমুদ্রবিজ্ঞানী: সমুদ্রবিজ্ঞানীরা হলেন এমন বিজ্ঞানী যারা সমুদ্রের বাস্তুতন্ত্র, সামুদ্রিক জীবন এবং মহাসাগরের অন্যান্য অংশ সহ সমুদ্র অধ্যয়ন করেন।

পরিবেশ বিজ্ঞানী: পরিবেশ বিজ্ঞানীরা পৃথিবীর পরিবেশ নিয়ে উদ্বিগ্ন। তারা পৃথিবী বিজ্ঞানের জ্ঞান ব্যবহার করে পৃথিবীর স্বাস্থ্য এবং মানুষের স্বাস্থ্য রক্ষার উপায় বের করতে পারে।

জীবাশ্মবিদ: জীবাশ্মবিদরা হলেন বিজ্ঞানী যারা জীবাশ্ম পরীক্ষা করে পৃথিবীর ইতিহাস অধ্যয়ন করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.