বোনাস শেয়ার কি?, উদাহরণ, সুবিধা, অসুবিধা, রেকর্ড প্রাক্তন তারিখ

বোনাস শেয়ার হল: কোম্পানীর বর্তমান শেয়ারহোল্ডারদের মালিকানাধীন শেয়ারের সংখ্যার ওপরে ভিত্তি করে একটি নির্দিষ্ট অনুপাতে বিনামূল্যে শেয়ার দেওয়া হয়।


উদাহরণ

ধরুন, আপনি টেসলা কোম্পানীর শেয়ার কিনে রেখেছেন এবং কিছুদিন পরে Tesla কোম্পানীর বোর্ড সিদ্ধান্ত নিলো – কোম্পানীর শেয়ার হোল্ডার দের ২:১ অনুপাতে বোনাস শেয়ার দেওয়া হবে।

  • অর্থাৎ, আপনার কাছে যদি ২ টি Tesla কোম্পানীর শেয়ার থাকে তাহলে আপনি ১ টি শেয়ার পাবেন। তাহলে মোট শেয়ারের পরিমাণ হবে ৩ টি।
  • যদি আপনার কাছে ১০ টি শেয়ার থাকে তাহলে ৫ টি অতিরিক্ত শেয়ার পাবেন। তাহলে বোনাস শেয়ার পাওয়ার পরে আপনার কাছে মোট ১৫ টি শেয়ার থাকবে।

একইভাবে, কোম্পানী বিভিন্ন অনুপাতে বোনাস শেয়ার করতে পারে।

বোনাস শেয়ারের দেওয়ার মাধ্যমে আপনার শেয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও শেয়ারের মূল্য একই থাকে। ধরুন: একটি শেয়ারের দাম ১০ টাকা ছিল। এবং ১:১ অনুপাতে বোনাস শেয়ার দেওয়া হলো। তাহলে আপনার কাছে মোট শেয়ারের সংখ্যা হবে ২ টি। কিন্তু প্রথমে শেয়ারের দাম ১০ টাকা ছিল এবং শেয়ার বোনাস দেওয়ার পরে শেয়ারের দাম ৫ টাকা হয়ে যাবে। আপনার কাছে মোট ১০ টাকার শেয়ার থাকবে। অর্থাৎ কোম্পানির মূল্য একই থাকবে।


বোনাস শেয়ারের রেকর্ড তারিখ কি?

Record Date হলো, শেষ তারিখ যেসব শেয়ারহোল্ডারদের ডিম্যাট অ্যাকাউন্টে শেয়ার আছে এমন সমস্ত শেয়ারহোল্ডার কোম্পানি থেকে বোনাস শেয়ার পাওয়ার যোগ্য হবেন।

Record Date হল সেই শেষ তারিখ যা কোম্পানির দ্বারা বোনাস শেয়ারের জন্য যোগ্য হওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।


বোনাস শেয়ারের প্রাক্তন তারিখ কি?

প্রাক্তন তারিখ রেকর্ড তারিখের এক দিন আগে। এখানে একজন বিনিয়োগকারীকে বোনাস শেয়ারের জন্য যোগ্য হওয়ার জন্য প্রাক্তন তারিখের অন্তত এক দিন আগে শেয়ার কিনতে হবে।


বোনাস শেয়ারের সুবিধা

কোম্পানির দৃষ্টিকোণ থেকে
1) বোনাস শেয়ার ইস্যু করা কোম্পানিগুলিকে এমন পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসতে সুবিধা দেয় যেখানে তারা তাদের শেয়ারহোল্ডারদের নগদ লভ্যাংশ দিতে পারে না বা পছন্দ করে না।
2) বাজারে বোনাস শেয়ার ইস্যু করার সাথে কোম্পানিগুলোর বেশি ফ্রি-ফ্লোটিং শেয়ার রয়েছে।
3) বোনাস শেয়ার ইস্যু করা কোম্পানির মূল্য বৃদ্ধি করে এবং বাজারে অবস্থান ও ভাবমূর্তি বৃদ্ধি করে, বিদ্যমান শেয়ারহোল্ডারদের আস্থা অর্জন করে এবং বেশ কিছু ছোট বিনিয়োগকারীকে স্টক মার্কেটের অংশ হতে আকৃষ্ট করে।

বিনিয়োগকারীদের দৃষ্টিকোণ থেকে
1) বোনাস শেয়ার শেয়ারহোল্ডারদের জন্য বিনামূল্যে কারণ সেগুলি কোম্পানি দ্বারা জারি করা হয়, যা কোম্পানির একজন বিনিয়োগকারীর বকেয়া শেয়ার বৃদ্ধি করে এবং স্টকের তারল্য বাড়ায়।
2) বোনাস শেয়ারগুলি কোম্পানির দীর্ঘমেয়াদী শেয়ারহোল্ডারদের জন্য উপকারী বলে বিবেচিত হয় যারা তাদের বিনিয়োগকে বহুগুণ করতে চায়।
3) বোনাস শেয়ার কোম্পানির ব্যবসায় এবং ক্রিয়াকলাপে একজন বিনিয়োগকারীর আস্থা তৈরি করতে সাহায্য করে কারণ তারা কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেছে এবং ফলস্বরূপ, বিনিয়োগকারীকে মূলধন দেয়৷
4) কোম্পানি থেকে বোনাস শেয়ার গ্রহণের সময় বিনিয়োগকারীদের কোনো কর দিতে হবে না।


বোনাস শেয়ারের অসুবিধা

কোম্পানির দৃষ্টিকোণ থেকে
1) যখন একটি কোম্পানি লভ্যাংশ দেওয়ার পরিবর্তে বোনাস শেয়ার ইস্যু করতে থাকে, তখন ইস্যু করা বোনাসের খরচ বছরের পর বছর ধরে বাড়তে থাকে।
2) বোনাস শেয়ার ইস্যু করার সময় কোম্পানি কোনো নগদ পায় না। ফলস্বরূপ, একটি অফার অনুসরণ করে অর্থ সংগ্রহ করার ক্ষমতা হ্রাস করা হয়।

বিনিয়োগকারীদের দৃষ্টিকোণ থেকে
1) একজন বিনিয়োগকারীর দৃষ্টিকোণ থেকে বোনাস শেয়ারের মালিকানার কোনও অসুবিধা নেই। তবে বোনাস শেয়ার প্রাপ্তির বিষয়ে তাদের জানা উচিত কারণ মুনাফা একই থাকবে, তবে শেয়ারের সংখ্যা বাড়বে বলে শেয়ার প্রতি আয় কমে যাবে।


কোম্পানী বোনাস শেয়ার কেন ইস্যু করে?

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কোম্পানী যখন বিস্তার করে এবং বেশি আয় করে। তখন শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পায় যার ফলে কোম্পানী শেয়ারহোল্ডারদের বোনাস শেয়ার দিয়ে থাকে ।

যার ফলে শেয়ারের দাম কিছুটা কমে যায় এবং শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে শেয়ারের সংখ্য়া বেড়ে যায় । যার ফলে শেয়ার হোল্ডারের বিনিয়োগের পরিমাণ একই থাকে । যেহেতু শেয়ারের দাম কিছুটা কমে যায় তাই বাকি ছোটো ছোটো বিনিয়োগকারী ঐ কোম্পানীর শেয়ার কেনার উত্সাহ দেখায়। যার ফলে ভবিষ্যতে শেয়ারের দাম অধিকহারে বৃদ্ধি পেতে পারে।

কোম্পানীগুলো বোনাস শেয়ার ইস্যু করে খুচরো অংশগ্রহনকে উৎসাহিত করতে এবং তাদের ইক্যুইটি বেস বাড়াতে । যখন একটি কোম্পানির শেয়ার প্রতি দাম বেশি হয়, তখন নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য সেই নির্দিষ্ট কোম্পানির শেয়ার কেনা কঠিন হয়ে পড়ে। শেয়ারের সংখ্যা বাড়লে শেয়ার প্রতি দাম কমে।


বোনাস শেয়ার কোম্পানির মূল্য বৃদ্ধি করে?

না। বোনাস শেয়ার কোম্পানীর মূল্য বৃদ্ধি করেনা ।

উদাহরণ: A কোম্পানীর বর্তমান শেয়ারের দাম ১০ টাকা এবং ২ জন শেয়ারহোল্ডার এর কাছে ৫ টি করে শেয়ার আছে। তাহলে, কোম্পানীর মোট শেয়ার সংখ্য়া হল ১০ টি এবং কোম্পানীর মোট মূল্য হল ১০০ টাকা।

এবার ধরুন, A কোম্পানী ১:১ অনুপাতে বোনাস শেয়ার দেওয়া হল । তাহলে ২ জন শেয়ারহোল্ডার এর ১০ টি করে শেয়ার থাকবে । অর্থাৎ মোট কোম্পানীর শেয়ার সংখ্য়া হবে ২০ টি । কিন্তু শেয়ারের দাম ১০ টাকা ছিল এবং শেয়ার বোনাস পাওয়ার পরে শেয়ারের দাম কমে ৫ টাকা হয়ে যাবে ।

অর্থাৎ, কোম্পানীর মূল্য ১০০ টাকাই থাকবে । এবং শেয়ারহোল্ডারদের শেয়ারের সঙ্গে বেড়ে গেলেও শেয়ারের দাম একই হারে কমে যাবে ।

বোনাস শেয়ার কি বিনিয়োগকারীদের জন্য ভালো?

বকেয়া শেয়ারের সংখ্যা বৃদ্ধি স্টকের মূল্য হ্রাস করে, খুচরা বিনিয়োগকারীদের জন্য স্টকটিকে আরও সাশ্রয়ী করে তোলে। এটি বিনিয়োগকারীদের কাছে আরও আকর্ষণীয় করে তোলে।

বোনাস শেয়ারের জন্য কে যোগ্য?

প্রাক্তন তারিখ এবং রেকর্ড তারিখের আগে কোম্পানির শেয়ারের মালিক শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানি থেকে বোনাস শেয়ার পাওয়ার যোগ্য।

শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.