রেখা কাকে বলে? কত প্রকার ও কি কি?, ব্যবহার, সরল রেখা ও বক্র রেখার পার্থক্য

একটি রেখা হল একটি এক-মাত্রিক চিত্র, যার দৈর্ঘ্য নেই কিন্তু প্রস্থ নেই। একটি লাইন বিন্দুর একটি সেট দিয়ে তৈরি যা বিপরীত দিকে অসীমভাবে প্রসারিত হয়।

রেখা কাকে বলে?

একাধিক বিন্দুর পারস্পরিক সংযোগের ফলে সৃষ্ট পথবিশেষ যার দৈর্ঘ্য, প্রস্থ এবং উচ্চতা নেই এবং উভয়দিকে অসীমভাবে প্রসারিত হয় তাকে রেখা বলে

রেখা

রেখার কোনো প্রান্ত বিন্দু নেই। অর্থাৎ রেখা অসীম দৈর্ঘ্য পর্যন্ত প্রসারিত হয়। তাই রেখার কোনো নির্দিষ্ট দৈর্ঘ্য নেই।

রেখার কোনো প্রান্ত বিন্দু নেই বলে রেখাকে ইচ্ছামত উভয় দিক বরাবর বাড়ানো যায়। তাই রেখা সোজা দৈর্ঘ্য বরাবর উভয়দিকে অসীম পর্যন্ত চলমান।

  • এটা এক-মাত্রিক
  • উভয় দিকেই এর কোন শেষ নেই (অসীম)
  • একটি লাইনকে বিন্দুর একটি সরল সেট হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা যেতে পারে যা বিপরীত দিকে প্রসারিত হয়
  • এর কোন পুরুত্ব নেই

রেখা কত প্রকার

রেখা প্রধানত দুই প্রকার:-

  1. সরল রেখা
  2. বক্র রেখা

১. সরল রেখা কাকে বলে?

যদি কোন বিন্দু সরল পথে চলে দুই দিকেই অসীম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়, তবে তাকে সরলরেখা বলে। অর্থাৎ, সরল রেখা একটি বিন্দু থেকে অন্য বিন্দু পর্যন্ত পৌঁছতে দিক পরিবর্তন করেনা। সরলরেখা একদম সোজাসুজি পথে চলে।

সহজভাবে, যে রেখার উপর অবস্থিত এক বিন্দু থেকে অন্য বিন্দুতে যেতে কোনো দিক পরিবর্তন করতে হয় না সেই রেখাকে সরলরেখা বলে।

সরলরেখার বক্রতা শূন্য।

২. বক্র রেখা কাকে বলে?

একটি বিন্দু থেকে অন্য একটি বিন্দুতে পৌঁছাতে যদি দিক পরিবর্তন হয় তবে তাকে বক্র রেখা বলে। অর্থাৎ, একটি বক্র রেখা এমন একটি যা সোজা নয় এবং বাঁকা।

আমরা জানি যে সরলরেখার বক্রতা শূন্য। তাই, যদি কোনো রেখার বক্রতা শূন্য না হয়, তাহলে আমরা তাকে বক্ররেখা বলতে পারি।

বিভিন্ন ধরণের বক্ররেখার একটি তালিকা নিচে দেওয়া হলোঃ

  • খোলা বক্ররেখা (open curve)
  • বদ্ধ বক্ররেখা(closed curve)
  • সাধারণ(general curve)
  • পরাবৃত্তাকার বক্ররেখা(hyperbolic curve)
  • বর্গমূল বক্ররেখা(square root curve)
  • লগারিদমিক বক্ররেখা(log curve)
  • যৌগিক বক্ররেখা(compound curve)
  • উল্টো বক্ররেখা(reverse curve)
  • প্যাঁচানো বক্ররেখা(spiral curve)
  • ঘন বক্ররেখা(cubic curve)
  • তুরীয় বক্ররেখা(transcendental curve)
  • অধিবৃত্তাকার বক্ররেখা(parabolic curve)
  • বহুপদী বক্ররেখা(polynomial curve)
  • অনুভূমিক বক্ররেখা(horizontal curve)
  • সরল বক্ররেখা(simple curve)
  • বীজগাণিতিক বক্ররেখা(algebraic curve)
  • দ্বিঘাত বক্ররেখা(quadratic curve)

রেখার ব্যবহার

চিত্রকলাতেও রেখার ব্যবহার উল্লেখযোগ্য। বিভিন্ন ধরনের রেখার ব্যবহারে শিল্পীরা তৈরি করেন তাদের নিজস্ব রেখাচিত্র।

সরলরেখার সাহায্যে বিভিন্ন ধরনের জ্যামিতিক আকার তৈরি করা যায়। যেমন:

  • ত্রিভুজ
  • চতুর্ভুজ
  • পঞ্চভুজ
  • ষড়ভুজ
  • আয়তক্ষেত্র
  • রম্বস
  • সামান্তরিক

ইত্যাদি তৈরি করা যায়।

আবার বক্ররেখার সাহায্যে যে সব জ্যামিতিক আকার তৈরি করা যায় তা হলো:

  • বৃত্ত
  • উপবৃত্ত
  • অধিবৃত্ত

ইত্যাদি তৈরি করা যায়।

সরল রেখা ও বক্ররেখার মধ্যে পার্থক্য

সরল রেখাবক্র রেখা
যে রেখা এক বিন্দু থেকে অন্য বিন্দুতে যেতে কোন দিক পরিবর্তন করে না তাকে সরলরেখা বলে।যে রেখা এক বিন্দু থেকে অন্য বিন্দুতে যেতে দিক পরিবর্তন করে তাকে বক্ররেখা বলে।
এটি একটি সরল রেখা। এটি একটি বক্র রেখা।
সরলরেখা সোজাসুজি চলে।বক্ররেখা সোজাসুজি চলে না।
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.