আউটসোর্সিং কি? কারণ, উদাহরণ, সুবিধা ও অসুবিধা কি কি?

আউটসোর্সিং কি?

আউটসোর্সিং হল একটি ব্যবসায়িক অনুশীলন যেখানে একটি কোম্পানী কাজ সম্পাদন করতে , অপারেশন পরিচালনা করতে বা কোম্পানির জন্য পরিষেবা প্রদানের জন্য একটি তৃতীয় পক্ষকে নিয়োগ করে। কোম্পানিগুলি সম্পূর্ণ বিভাগগুলিকে আউটসোর্স করতে পারে, যেমন এর সম্পূর্ণ আইটি বিভাগ, বা শুধুমাত্র একটি নির্দিষ্ট বিভাগের কিছু অংশ।

Outsourcing হল একটি কোম্পানির দ্বারা একটি কৌশলগত সিদ্ধান্ত যাতে খরচ কমানো যায় এবং কার্য সম্পাদন করার জন্য অন্য ব্যক্তি বা কোম্পানিকে নিয়োগের মাধ্যমে, পরিষেবা প্রদান করা বা পরিচালনা করা হয় যা কোম্পানির মধ্যে কর্মচারীদের দ্বারা পূর্বে করা হয়েছিল। অন্য কথায়, আউটসোর্সিং হল একটি কোম্পানির বাইরে নির্দিষ্ট কাজের চুক্তি আউটও (contracting out) বলা হয়।

খুব সহজ ভাষায় আউটসোর্সিং এর অর্থ হল কোনো কাজ যা বাইরে থেকে করিয়ে নেওয়া।

উদাহরণ হিসেবে: ধরুন কোনো কোম্পানির তে কোনো কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত কারিগর না থাকে তাহলে ওই কাজকে বাইরে থেকে কাউকে টাকা দিয়ে করিয়ে নেওয়া যায়। একেই বলে হয় আউটসোর্স এর মধ্যে কাজটি করানো হয়েছে।

এছাড়াও ধরুন কোনো মিষ্টির দোকানের কাছে অর্ডার এলো ১০০ পিস মিষ্টির কিন্তূ ধরুন ওই মিষ্টির দোকানের কাছে ১০০ পিস মিষ্টি না থাকে তাহলে অন্য কোনো দোকান থেকে কিনে এনে খরিদ্দার কে দিতে পারে। যার অর্থ হলো ওই মিষ্টির দোকানদার ওই মিষ্টি গুলিকে আউটসোর্স করেছে।

আরও একটি উদাহরণ হলো: ধরুন আপনি ক্যাটারিং এর কাজ ধরলেন এবং আপনার কাছে যদি ওই ক্যাটারিং এর কাজ করার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ লোক না থাকে তাহলে আপনি বাইরে থেকে আরো কিছু কাজের লোক নিয়ে ওই ক্যাটারিং এর কাজটি সম্পন্ন করতে পারেন। অর্থাৎ আপনি কিছু পরিমাণ কাজের লোক আউটসোর্স করেছেন।

আশাকরি আপনি বুঝতে পেরেছেন আউটসোর্স কি। এবং এই পদ্ধতিকেই আউটসোর্সিং বলা হয়।

বহুল ব্যবহৃত আউটসোর্সিং কাজগুলি হলো:

  • Content writing
  • Customer support service
  • Marketing
  • Engineering
  • Research and design
  • Computer programming services
  • Tax compliance
  • Supply chain management
  • Human resource management
  • Accounting
  • Finance
  • Training administration

আউটসোর্সিং এর উদাহরণ

বিজ্ঞাপন, অফিস এবং গুদাম পরিষ্কার করা এবং ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট হল আউটসোর্সিং এর সেরা উদাহরণ। বেশিরভাগ ব্যবসার মালিক আউটসোর্সড বিশেষজ্ঞদের কাছে কর্তৃত্ব অর্পণ করে যখন এটি হিসাবরক্ষণ, রক্ষণাবেক্ষণ, নিয়োগের ক্ষেত্রে আসে। এটি এন্টারপ্রাইজগুলিকে তাদের বেশিরভাগ সংস্থান প্রধান কার্যকলাপে ফোকাস করতে সহায়তা করে।

  • আইটি-আউটসোর্সিং: প্রতিটি কোম্পানি একজন উচ্চ যোগ্য আইটি-বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করতে চায়, কিন্তু প্রতিটি কোম্পানিই ভালো বেতন দিতে পারে না। কোনো সীমিত কাজের জন্য প্রতিটি কোম্পানির মধ্যে এমন একজন বিশেষজ্ঞের প্রয়োজন নেই। তাই বিভিন্ন সফটওয়্যার ও সাইবার সুরক্ষার জন্য আইটি আউটসোর্সিং করা হয়ে থাকে।
  • অ্যাকাউন্টিং: বিভিন্ন ব্যাবসার ক্ষেত্রে একাউন্টিং করার জন্য একটি একাউন্ট এর জন্য কোনো ব্যাক্তিকে স্থায়ী কর্মচারী রাখা সম্ভব না হলে, বছরের শেষে হিসেবের জন্য একজন একাউন্টিং এর ব্যাক্তিকে দিয়ে আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে কাজ করা হয়ে থাকে।
  • আইনি পরিষেবা: যদি একটি এন্টারপ্রাইজের আইন ভঙ্গ করার অভ্যাস না থাকে, তাই কর্মীদের স্থায়ী আইনজীবীর প্রয়োজন নেই। বেশিরভাগ ব্যবসার বছরে কয়েকবার আইনি পরিষেবার প্রয়োজন হয়। একটি আইন কোম্পানির সাথে একটি চুক্তি যোগ্য আইনি সহায়তা পাওয়ার একটি ভাল উপায়। আপনাকে শুধুমাত্র আপনার আইনি সমস্যা সমাধানের জন্য অর্থ প্রদান করতে হবে।
  • লজিস্টিক আউটসোর্সিং: অনেক বছর আগে, পরিবহন এবং গুদাম প্রক্রিয়া সমন্বয়ের জন্য দায়ী বৃহৎ কর্মী প্রস্তুত ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য উদ্যোগগুলিকে প্রচুর অর্থ বিনিয়োগ করতে হয়েছিল। আজকাল, আপনাকে একটি বিশেষ পরিবহন বিভাগ বজায় রাখতে হবে না। আপনাকে শুধুমাত্র একটি লজিস্টিক কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

এছাড়াও বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে আউটসোর্সিং করা হয়ে থাকে।

আউটসোর্সিং এর কারণ

আউটসোর্স করার সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

  1. অপারেটিং, শ্রম এবং ওভারহেড খরচ কমানো
  2. বহিরাগত সংস্থাগুলিকে পরিচালনা এবং নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন এমন দায়িত্বগুলি অর্পণ করে নমনীয়তা এবং দক্ষতার উন্নতি করা
  3. কোম্পানির মূল দক্ষতার উপর আরো ফোকাস করা, এবং এইভাবে বহিরাগত কোম্পানিগুলিতে সময়-সাপেক্ষ প্রক্রিয়াগুলি আউটসোর্সিং করে এর প্রতিযোগিতামূলক সুবিধাগুলি উন্নত করা
  4. বহিরাগত দলগুলির সাথে ঝুঁকি ভাগ করে নেওয়া এবং অর্থপূর্ণ অংশীদারিত্ব গড়ে তোলার মাধ্যমে ঝুঁকি হ্রাস করা
  5. অভ্যন্তরীণ সম্পদ মুক্ত করা এবং অন্যান্য উদ্দেশ্যে সম্পদ ব্যবহার করা

আউটসোর্সিং এর সুবিধা কি কি?

  • আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ পাবেন এবং ওই কাজটি হওয়ার জন্যই টাকা দিতে হবে। ওই বিশেষজ্ঞকে স্থায়ীভাবে কোম্পানিতে রাখার প্রয়জন হয় না আর ফলে খরচ কমে যায়।
  • বাইরে থেকে কোনো কাজ করিয়ে নিলে কাজটি দ্রুত করা সম্ভব হয়।
  • কোনো কাজ আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে করার ফলে কোম্পানির আসল ব্যাবসার ওপরে ভালোভাবে নজর দেওয়া সম্ভব হয়।
  • প্রকল্প পরিচালনাকে সহজ করতে পারেন
  • আপনি যদি আউটসোর্সিং এর কাজ নিয়ে থাকেন তাহলে যেকোনো সময় আউটসোর্সিং এর কাজ করতে পারেন।

আউটসোর্সিং এর অসুবিধা কি কি?

আউটসোর্সিংয়ের অসুবিধাগুলির মধ্যে রয়েছে যোগাযোগের অসুবিধা, সুরক্ষা হুমকি যেখানে সংবেদনশীল ডেটা ক্রমবর্ধমান ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে এবং অতিরিক্ত আইনি দায়িত্ব। একটি বিস্তৃত স্তরে, আউটসোর্সিং একটি শ্রমশক্তি ব্যাহত করার সম্ভাবনা থাকতে পারে।

একটি উদাহরণ যা প্রায়শই মনে আসে আমেরিকার উত্পাদন শিল্প, যেখানে এখন প্রচুর পরিমাণে উত্পাদন আন্তর্জাতিকভাবে স্থানান্তরিত হয়েছে। পরিবর্তে, রোবোটিক্স বা নির্ভুল মেশিনের মতো উচ্চ-দক্ষ উৎপাদনের কাজগুলি আরও বড় আকারে আবির্ভূত হয়েছে।

  • সংবেদনশীল তথ্য হারানোর ঝুঁকি এবং বহিরাগত দলগুলিতে আউটসোর্সিং কার্যক্রম বা প্রক্রিয়া দ্বারা গোপনীয়তা হারানোর ঝুঁকি
  • আউটসোর্সিং কোম্পানিগুলি প্রচুর সূক্ষ্ম মুদ্রণের সাথে দীর্ঘ চুক্তিভিত্তিক চুক্তি তৈরি করে লুকানো বা অপ্রত্যাশিত খরচ আরোপ করতে পারে
  • গুণমান নিয়ন্ত্রণের অভাব, কারণ আউটসোর্সিং সংস্থাগুলি প্রায়শই ভাল কাজ করার দিকে মনোনিবেশ না করে লাভ-চালিত হয়
  • ব্যবস্থাপনা নিয়ন্ত্রণের ক্ষতি এবং আউটসোর্স করা ক্রিয়াকলাপ বা প্রক্রিয়াগুলির ক্রিয়াকলাপ নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষমতা
শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published.